জলিল পাগলা মাঠে কোন প্রকার মাদক ব্যবসা হয় না     – আব্দুর রহিম  ও রহমান খান 

Uncategorized অর্থনীতি আন্তর্জাতিক খেলাধুলা প্রচ্ছদ সোনার বাংলা
নিজস্ব প্রতিবেদক :
আমাদের ভাইয়ের সম্পত্তি জলিল পাগলার মাঠে কোন মাদক ব্যবসা হয়না। কারন, এই মাঠের চারপাশে দোকানপাট, শত শত মানুষের আনাগোনা। এখানে একটি কিন্ডার গার্টেন রয়েছে। আশপাশে রয়েছে মসজিদ ও আরো শিক্ষা প্রতিষ্টান। এতো ব্যস্ততম জায়গায় মাদক ব্যবসা হাস্যকর। আমাদের ভাগিনা আবুল কালাম সক্কু ও আমির হোসেন ম্যাঙ্গা কাউকে মাদক বিক্রিতে সহযোগীতা করেনা। ফর্মা নজরুলের সাথে জলিল পাগলা মাঠের কোন সম্পর্ক নেই। নজরুল যদি কোন অপকর্ম করে তার দায়ভার জলিল পাগলা মাঠের নয়। তাছাড়া নজরুল মাদক ব্যবসা করবে কিভাবে? সে যদি সোর্স হয় তাহলে তাকে দেখে তো মাদক ব্যবসায়ীরা আরো পালানোর কথা। কারন, সে মাদক ব্যবসায়ীদের পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দিবে।
কথাগুলো বলেছেন মরহুম জলিল পাগলার ভাই আব্দুর রহিম খান ও আব্দুর রহমান খান। গত শুক্রবার গোদনাইলে জলিল পাগলার মাঠে আমির হোসেন ম্যাঙ্গা ও আবুল কালাম সক্কুর ছত্রছায়ায় ফর্মা তোতলা নজরুলের মাদক ব্যবসা সংবাদের প্রতিবাদে গতকাল সোনারগা থেকে তাদের জায়গা পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের নিকট উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। জলিল পাগলার ভাইয়েরা বলেন, আমরা সোনারগা থানার বরুমদীতে থাকি। সেখান থেকে গোদনাইলের তাঁতখানায় আমার ভাইয়ের সম্পত্তি দেখা-শোনা করে রাখা সম্ভব নয়। ইতিমধ্যে আমাদের অনুপস্থিতিতে আমার ভাইয়ের সম্পত্তি দখলের জন্য একটি কুচক্রী মহল উঠেপড়ে লেগেছে। তাই কুচক্রী মহলের হাত থেকে জায়গাটি রক্ষা করতে জায়গাটির দেখা-শোনার ভার আমাদের ভাগিনা আবুল কালাম সক্কুকে প্রদান করি। একটি কুচক্রীমহল সংবাদে আমাদের ভাগিনা যুবলীগ নেতা আমীর হোসেন ম্যাঙ্গা সাথে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের প্রয়াত সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমানের সুযোগ্য উত্তরসুরি আজমীর ওসমানের জন্মদিনের কেক কাটার কথাও উল্লেখ করেছেন। আমাদের ধারনা আজমেরী ওসমানের কথা উল্লেখ করেছেন এজন্য যে, আজমেরী ওসমানের নজরে আমাদের ভাগিনাদের খারাব বানিয়ে রাগান্বিত করার জন্য সুকৌশল নিয়েছে। এ ব্যাপারে আমরা বলতে চাই, আমীর হোসেন ম্যাঙ্গা অনেক আগ থেকেই আজমেরী ওসমানের সৈনিকও সমর্থক। আর নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের প্রয়াত সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমান মরহুম জলিল পাগলার একজন ভক্ত। এমপি নাসিম ওসমান তার জীবনদশায় প্রায় জলিল পাগলার দরবারে আসতেন। সর্বদা খোজ-খবর নিতেন। তারই ধারাবাহিকতায় তার সুযোগ্য উত্তরসুরি তারুন্যের অহংকার আজমীর ওসমানও জলিল পাগলার মাঠের জাগয়া দখল, কুচক্রীমহলের ষড়যন্ত্রসহ সকল খবর সম্পর্কে অবগত। বিশিস্ট ব্যবসায়ী মনির হোসেন মনার মাধ্যমে আমাদের ভাগিনা যুবলীগের আমীর হোসেন ম্যাঙ্গা সর্বদা জলিল পাগলার মাঠের সকল খবর তারুন্যের অহংকার আজমীর ওসমানকে জানিয়ে থাকেন। সুতরাং জলিল পাগলার মাঠকে জড়িয়ে যুবলীগের আমীর হোসেন ম্যাঙ্গাকে আজমেরী ওসমানের নিকট খারাপ বানানোর অপচেষ্টা কখনো সফল হবেনা বলে আমাদের বিশ্বাস। আমরা জানতে পেরেছি, আমাদের সম্পত্তি আমাদের ভাগিনা দেখাশোনা করুক তা কুচক্রিমহল চায়না। তাই ফর্মা নজরুলকে জড়িয়ে আমীর হোসেন ম্যাঙ্গা ও তার ভাই আবুল কালাম সক্কুকে তারুন্যের অহংকার আজমেরী ওসমানও প্রশাসনের নিকট কালার করার অপচেষ্টা করছে। বর্তমানে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স। সেখানে তাদের ফর্মা নজরুল মাদকের সাথে জড়িত থাকলে তা তাদের অবশ্যই নলেজে থাকতো। তবে পূর্বে যদি নজরুল কোন অপরাধ করে থাকে তার জন্য তাকেই খেসারত দিতে হবে এই ক্ষেত্রে জলিল পাগলার মাঠে সম্পর্ক নেই। জলিল পাগলার ভাইয়েরা তাদের ভাগিনা যুবলীগের আমীর হোসেন ম্যাঙ্গা ও আবুল কালাম সক্কুকে জড়িয়ে জলিল পাগলার মাঠ নিয়ে মিথ্যে সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। এ ব্যাপারে যুবলীগের আমীর হোসেন ম্যাঙ্গা বলেন, যে সাংবাদিক আমাদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করেছেন তিনি আমাকে ফোন দিয়েছেন এবং আমার বক্তব্য সংবাদে জড়িয়ে দেয়ায় আমি সাংবাদিক ভাইকে ধন্যবাদ জানাই। আমি স্পস্ট ভাষায় বলতে চাই, আমরা মাদকের সাথে জড়িত নই। আমরা কাউকে মাদকের সেল্টার দেই না। তারুন্যের অহংকার আমাদের ভাইজান আজমেরী ওসমানের আমি একজন সমর্থক। তার কোন বদনাম হবে তা আমি কখনো ইতিপূর্বে করি নাই কখনো করবো না। জলিল পাগলার মাঠের সাথে আমাদের জড়িয়ে সংবাদ প্রকাশ করে আজমেরী ওসমানের নিকট আমাদের খারাপ বানানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত একটি কুচক্রী মহল যার সংবাদ ভাইজানের জানা আছে। আমি ও আমার ভাইকে নিয়ে মিথ্যে সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *